অল্প Fee দিয়ে বা Fee ছাড়া Bitcoin সেন্ড করার উপায়

বর্তমানে বিটকয়েনের ব্যবহার ব্যপকভাবে বৃদ্ধি পাওয়াতে, প্রতিদিন নতুন নতুন ইউজার ইন্ডাষ্ট্রিতে আসার কারনে এবং বিটকয়েনের দাম বৃদ্ধি পাওয়ার কারনে ট্রান্সেকশন কনফার্ম হতে অতীতের তুলনায় বেশি Fee দিতে হয়। কারেন্সি মার্কেটে ট্রেড করার ক্ষেত্রে দ্রুত ট্রান্সেকশন একটি খুবই গুরুত্বপূর্ন বিষয়। কিন্তু সমস্যা হল যারা নতুন ট্রেডার এবং যারা অল্প ইনভেষ্টমেন্ট নিয়ে ট্রেড শুরু করেছে তাদের জন্য 20-30$ Fee দেওয়া শুধু বাড়তি চাপই নয় তা তাদের আর্নিং এর উপর ব্যপক প্রভাব ফেলে। তাই আজকে আমরা এমন কিছু উপায় শিখব যা ব্যবহার করে একেবারে অল্প Fee দিয়ে অথবা একেবারে Free তে আমরা বিটকয়েন এক জায়গা থেকে অন্য জায়গায় পাঠাতে পারব।

** এখানে আমরা কয়েনবেস বা ব্লকচেইন বা এই জাতীয় প্রচলিত ওয়েব ওয়ালেট ব্যবহার করব না কারন এগুলা নিরাপদ নয় এবং এগুলো আমাদের নিয়ন্ত্রনে থাকে না।

১. Segwit Address ব্যবহার করা

অল্প Fee তে দ্রুত ট্রান্সেকশন কনফার্ম করার অন্যতম উপায় হল SegWit Address এ ট্রান্সেকশন করা। Segwit এর বিস্তারিত বিবরন হতে আপনারা SegWit সম্পর্কে যাবতীয় সব কিছু জানতে পারবেন। Segwit বিটকয়েনের Lightning Network ব্যবহার করার কারনে এতে Fee অল্প দিলেও ট্রান্সেকশন সাধারনত পরবর্তী ৫ থেকে ১০ ব্লকের মধ্যে কনফার্ম হয়ে যায়। তবে কিছু ক্ষেত্রে এর ভিন্নতা ঘটতে পারে। আপনারা SegWit এর বিস্তারিত বিবরন হতে Segwit Address চিনার উপায় সম্পর্কে জানতে পারবেন।

Electrum Wallet এর বিস্তারিত পোষ্টে দেখানো হয়েছে কিভাবে সামান্য ফী দিয়ে ট্রান্সেকশন সেন্ড করার পরও মাত্র ১-৩ ব্লকের মধ্যে কনফার্ম হয়ে গেছে। সেখানে উদাহরন এর জন্য সবগুলোই SegWit অ্যাড্রেস ব্যবহার করা হয়েছিল। এবং Electrum Wallet ও SegWit ট্রান্সেকশন সাপোর্ট করে। তাই আপনারাও সবসময় SegWit অ্যাড্রেস ব্যবহার করতে চেষ্টা করবেন। তাতে ফী ও কম লাগবে সময় ও অনেক সাশ্রয় হবে।

২. ব্যক্তিগত ওয়ালেট এর সঠিক ব্যবহার

ব্যক্তিগত বা ডেক্সটপ ওয়ালেটকে কৌশলে ব্যবহার করে অনেক ক্ষেত্রে অল্প Fee ব্যবহার করে ট্রান্সেকশন করা যায়। মনেকরি আপনি 0.01 BTC ৫টা আলাদা এক্সচেঞ্জ এ পাঠাতে চান 0.002 BTC আকারে। ধরি বর্তমানে আপনি Binance থেকে withdraw করবেন যেখানে BTC এর withdraw fee বর্তমানে 0.0004 BTC. তাহলে ৫টা আলাদা আলাদা ট্রান্সেকশন সেন্ড করতে আপনাকে 0.0004 * 5 = 0.002 BTC ফী দিতে হবে যা আজকের দিনের হিসাবে 0.002 * 55000 = 110 ডলার

এখন এই একই কাজ যদি আমরা ব্যক্তিগত ওয়ালেট ব্যবহার করে করি তাহলে ব্যাপারটা হবে এরকম। প্রথমে Binance থেকে আমরা 0.0004 BTC ফী দিয়ে আমাদের ওয়ালেটে নিয়ে আসলাম। এরপর আমাদের ওয়ালেট থেকে 0.00005 BTC করে ফী দিয়ে ৫টা এক্সচেঞ্জ এ সেন্ড করলাম। ফলে আমাদের Fee দিতে হল 0.00005 * 5 = 0.00025 BTC. তাহলে আমাদের মোট খরচ হল 0.0004 + 0.00025 = 0.00065 BTC যা আজকের দিনের হিসাবে 0.00065 * 55000 = 35.75 ডলার। ফলে আমাদের সাশ্রয় হল কমপক্ষে 74.25 ডলার।

এখানে লক্ষনীয় বিষয় হল, কিছু কিছু ওয়ালেট থেকে আপনি চাইলেই একসাথে একাধিক অ্যাড্রেসে বিটকয়েন সেন্ড করতে পারবেন একই ট্রান্সেকশনে। সেক্ষেত্রে Fee আরো আরো অনেক কম দিয়েই একসাথে ৫ টা এক্সচেঞ্জ এ বিটকয়েন সেন্ড করতে পারবেন। এই ব্যাপারে বিস্তারিত জানতে Electrum Wallet এর বিস্তারিত পোষ্টটি পড়ুন। আপনি চাইলে Guarda Wallet ব্যবহার করতে পারেন কারন এতে একসাথে অনেক কারেন্সি এক ওয়ালেটের মধ্যেই আছে আর সব ওয়ালেট এর প্রাইভেট কী জানা যায়। Guarda Wallet এর বিস্তারিত হতে আপনারা এর ব্যবহার সম্পর্কে জানতে পারবেন। কিন্তু এটা দিয়ে আপনারা একাধিক অ্যাড্রেস এ এক ট্রান্সেকশন এ কয়েন সেন্ড করতে পারবেন না। তার মানে এই না যে এর কোন গুরুত্ব নেই। গুরুত্ব না থাকলে এর উপর আলাদা ভাবে পোষ্ট তৈরী করা হত না। তাই এর ব্যবহার ও জানতে হবে।

৩. Stakecube ব্যবহার করা।

** যেহেতু, এটা একটা এক্সচেঞ্জ তাই এটা সাবধানে ব্যবহার করাই ভাল। কারন সবসময় মনে রাখতে হবে যে ওয়ালেটের প্রাইভেট কী আপনার জানা না থাকলে আপনার বিটকয়েন আপনার হাতে নেই। তাই সেটা কখনোই সুরক্ষিত হতে পারে না।

যারা ডেক্সটপে ওয়ালেট ব্যবহার করতে বা ম্যানুয়ালি প্রসেস করে কয়েন সেন্ড করার ঝামেলায় যেতে চান না তাদের জন্য Stakecube একটা চমৎকার সমাধান। এখানে কয়েকটি কয়েন [ সাধারনত ETH আর ETH Token ] ছাড়া সকল কয়েন withdraw করতে কোন ফী নেই। তারা ট্রান্সেকশন করার জন্য প্রয়োজনীয় ফী এক্সচেঞ্জ এর পক্ষ থেকে দিয়ে দেয়। শুধু তাই নয় প্রতিদিন তারা ০.০২% করে ইন্টারেষ্ট প্রদান করে BTC, LTC, DOGE, DASH এগুলোর উপর। তার চেয়ে বড় বিষয় হল, এখানে আপনি ট্রেড করতে করতে ও ইন্টারেষ্ট পাবেন আপনার ব্যালেন্সের কয়েনের উপর। আর এগুলো বাদে অন্য কয়েন থাকলে তার উপরও প্রতি ব্লকে ষ্টেক রিওার্ড পাবেন যখনি পুল কোন ষ্টেক জেনারেট করবে। তাই এখনি জয়েন করুন Stakecube এ আর তাদের এই সুবিধার পূর্ন স্বদব্যবহার করুন।

Stakecube এর বিস্তারিত বিবরন হতে এই সাইটের সকল সুবিধাসমূহ এবং এর অনেক গুরুত্বপূর্ন ফিচার ব্যবহারের Tips পাবেন।

শেয়ার করে বন্ধুদের জানার সুযোগ করে দিন